আ. লীগের নামে ৭৩ ভুঁইফোড় সংগঠন: কঠোর ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ

সময় ট্রিবিউন | ২৬ জুলাই ২০২১ ১৭:০৮ আপডেট: ২৬ জুলাই ২০২১ ১৭:২৪

ফাইল ছবি

বাঙালি জাতির ইতিহাসের এক অনন্য উজ্জ্বল রাজনৈতিক দলের নাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ের ইতিহাসে এমন কোনও অধ্যায় পাওয়া যাবে না, যেখানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অবদান নেই। এমনকি বাংলাদেশ নামক দেশটির অভ্যুদয়ের পেছনে রয়েছে আওয়ামী লীগের বিরাট অবদান। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দলটির নাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। দীর্ঘ সংগ্রাম আর রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকারের পর ২০০৯ সাল থেকে টানা তিন মেয়াদে দেশকে নেতৃত্ব দিচ্ছে সংগঠটি। তবে গত এক দশকে আওয়ামী লীগ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নাম ব্যবহার করে ভুঁইফোড় সংগঠন গড়ে উঠেছে শতাধিকেও বেশি। রাজনৈতিক অঙ্গনে এ সংগঠনগুলোকে ‘দোকান’ বলা হয়ে আসছে প্রায় এক যুগ থেকেই। তবে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সোচ্চার হয়েছে এই সংগঠনটি। পুলিশও তৎপর রয়েছে এসব  ভুঁইফোড় ও নামসর্বস্ব সংগঠনের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে।

আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা বলছেন, দলের নাম ব্যবহার করে এক ধরনের হাইব্রিড শ্রেণি আওয়ামী লীগের পতাকা তলে আশ্রয় লাভের বাসনায় বিভিন্নভাবে চেষ্টা তদবির চালিয়ে যাচ্ছে। এই নব্য হাইব্রিডদের কারণে ত্যাগীদের কোণঠাসা হওয়ার অভিযোগ শোনা যাচ্ছে হরহামেশাই। যা তা বিষয়কে কেন্দ্র করে ‘লীগ’ শব্দটি জুড়ে তারা খুলে বসছে তাদের এই রাজনৈতিক দোকান। এমন সব শব্দের পাশে ‘লীগ’ শব্দটি তারা জুড়ে দিচ্ছে, যা শুধু কৌতুকপূর্ণ নয়, অপমানজনকও বটে। এসব সুযোগ সন্ধানীদের এই অদ্ভুত অদ্ভুত সব ‘লীগ’ গড়ে তোলার কারণ শুধুই নিজেকে বড় আওয়ামী লীগার সাজিয়ে নিজের স্বার্থ সিদ্ধি হাসিল করছে।  

সম্প্রতি আওয়ামী লীগের উপকমিটি থেকে সদ্য বহিষ্কার হওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীরের ‘আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ’ নামক একটি সংগঠন নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়ে দলটি। হেলেনাকে দলীয় পদ থেকে বহিষ্কার করা হলেও সমালোচনা থেমে নেই। তাই আবার নড়েচড়ে বসেছে দলটি।

এ ঘটনার পর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ এফ এম বাহাউদ্দিন নাসিম তাঁর ফেসবুকে এক পোস্টে বলেছেন, ‘ময়ূরের পেখম লাগালেই কাক কখনো ময়ূর হয় না। তেমনি নামের সঙ্গে “লীগ” শব্দ ব্যবহার করলেই আওয়ামী লীগ হয়ে যায় না। আওয়ামী লীগ একটা আদর্শ। এটাকে ধারণ করতে হয়। দলের গঠনতন্ত্রের বাইরে কোনো সংগঠনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের সম্পর্ক নেই।’

আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন, জাতির পিতা বা পরিবারের সদস্যদের নামে সংগঠন বা প্রতিষ্ঠান করার সুনির্দিষ্ট বিধান আছে। আওয়ামী লীগের নামে কোনো সংগঠন করতে গেলে আওয়ামী লীগের অনুমোদন লাগে।

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্র বলছে, সাম্প্রতিক সময়ে গজিয়ে ওঠা, বিশেষ করে আওয়ামী লীগ টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর আরও বেশ কিছু সংগঠন হয়েছে। গত প্রায় এক যুগে গড়ে ওঠা এমন ৭৩টি সংগঠনের নাম পেয়েছে দলটি। আওয়ামী লীগই বলছে, এর বাইরে আরও অনেক সংগঠন আছে, যেগুলোর কথা তাদের জানা নেই। সুযোগসন্ধানী এসব সংগঠনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো সম্পর্ক নেই।

এমন সংগঠনগুলো হলো—

১. জননেত্রী শেখ হাসিনা কেন্দ্রীয় লীগ, ২. জননেত্রী শেখ হাসিনা কেন্দ্রীয় সংসদ, ৩. আওয়ামী প্রচার লীগ, ৪. আওয়ামী সমবায় লীগ, ৫. আওয়ামী তৃণমূল লীগ, ৬. আওয়ামী ছিন্নমূল হকার্স লীগ, ৭. আওয়ামী মোটরচালক লীগ, ৮. আওয়ামী তরুণ লীগ, ৯. আওয়ামী রিকশা মালিক-শ্রমিক ঐক্য লীগ, ১০. আওয়ামী যুব হকার্স লীগ, ১১. আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ, ১২. আওয়ামী পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধা লীগ, ১৩. আওয়ামী পরিবহন শ্রমিক লীগ, ১৪. আওয়ামী নৌকার মাঝি শ্রমিক লীগ, ১৫. আওয়ামী ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী লীগ, ১৬. আওয়ামী যুব সাংস্কৃতিক জোট, ১৭. বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও চেতনা গবেষণা পরিষদ, ১৮. বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ, ১৯. বঙ্গবন্ধু একাডেমি, ২০. বঙ্গবন্ধু নাগরিক সংহতি পরিষদ, ২১ ওলামা লীগ, ২২. বঙ্গবন্ধু লেখক লীগ, ২৩. বঙ্গবন্ধু প্রজন্ম লীগ, ২৪. বঙ্গবন্ধু যুব পরিষদ, ২৫. বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ, ২৬. বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ, ২৭. বঙ্গবন্ধু বাস্তুহারা লীগ, ২৮. বঙ্গবন্ধু আওয়ামী হকার্স ফেডারেশন, ২৯. বঙ্গবন্ধুর চিন্তাধারা বাস্তবায়ন পরিষদ, ৩০. বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদ, ৩১. বঙ্গবন্ধু গ্রাম ডাক্তার পরিষদ, ৩২. বঙ্গবন্ধু নাগরিক সংহতি পরিষদ, ৩৩. বঙ্গবন্ধু লেখক লীগ, ৩৪. বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ, ৩৫. বঙ্গবন্ধু আদর্শ পরিষদ, ৩৬. আমরা মুজিব সেনা, ৩৭. আমরা মুজিব হব, ৩৮. চেতনায় মুজিব, ৩৯. বঙ্গবন্ধুর সৈনিক লীগ, ৪০. মুক্তিযোদ্ধা তরুণ লীগ, ৪১. নৌকার সমর্থক গোষ্ঠী, ৪২. দেশীয় চিকিৎসক লীগ, ৪৩. ছিন্নমূল মৎস্যজীবী লীগ, ৪৪. ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী লীগ, ৪৫. নৌকার নতুন প্রজন্ম, ৪৬. ডিজিটাল ছাত্রলীগ, ৪৭. ডিজিটাল আওয়ামী প্রজন্ম লীগ, ৪৮. ডিজিটাল আওয়ামী ওলামা লীগ, ৪৯. বাংলাদেশ আওয়ামী পর্যটন লীগ, ৫০. ঠিকানা বাংলাদেশ, ৫১. জনতার প্রত্যাশা, ৫২. রাসেল মেমোরিয়াল একাডেমি, ৫৩. জননেত্রী পরিষদ, ৫৪. দেশরত্ন পরিষদ, ৫৫. বঙ্গমাতা পরিষদ, ৫৬. বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব পরিষদ, ৫৭. আমরা নৌকার প্রজন্ম, ৫৮. আওয়ামী শিশু যুবক সাংস্কৃতিক জোট, ৫৯. তৃণমূল লীগ, ৬০. একুশে আগস্ট ঘাতক নির্মূল কমিটি, ৬১. আওয়ামী প্রচার লীগ, ৬২. সজীব ওয়াজেদ জয় লীগ, ৬৩. বাংলাদেশ তথ্যপ্রযুক্তি লীগ, ৬৪. আওয়ামী শিশু লীগ, ৬৫. আওয়ামী তৃণমূল লীগ, ৬৬. আওয়ামী তরুণ প্রজন্ম লীগ, ৬৭. আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ, ৬৮. বাংলাদেশ জনসেবা লীগ, ৬৯. আওয়ামী শিশু-কিশোর লীগ, ৭০ অভিভাবক লীগ, ৭১ উদ্যোক্তা লীগ, ৭২. আওয়ামী অনলাইন লীগ এবং ৭৩. বিশ্ব আওয়ামী অনলাইন লীগ।

এখন পর্যন্ত দল থেকে ভুঁইফোড় সংগঠন করার কারণে কারও বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কি না, তা জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ এক নেতা বলেন, পুলিশকে বলা হয়েছে দল ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের নামে অবৈধভাবে কেউ কোনো সংগঠন করলে ব্যবস্থা নিতে।

এদিকে এসব ভুঁইফোড় সংগঠনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে তৎপর হয়েছে পুলিশ। পুলিশ সদর দপ্তরের এক কর্মকর্তা জানান, আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার নাম দিয়ে যারা বিভিন্ন সংগঠন খুলেছে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া শুরু হয়েছে।

এদিকে ভুঁইফোড় ও নামসর্বস্ব এসব সংগঠনের বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, এটা ঠিক, কয়েক বছর ধরে এ ধরনের সংগঠন গড়ে উঠছে। এর আগেও পুলিশকে এসব সংগঠনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া জন্য বলা হয়েছিল। তখন কিছু ব্যবস্থা নেওয়াও হয়েছে। আবারও এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে চিঠি দেওয়া হবে।

এবিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, স্বীকৃত সংগঠনের বাইরে যেকোনো নামের সঙ্গে ‘লীগ’ বা ‘আওয়ামী’ শব্দ জুড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। দলের গঠনতন্ত্রের বিধান অনুযায়ী আওয়ামী লীগের রয়েছে সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন এবং বিভিন্ন উপ-কমিটি। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী স্বীকৃত সংগঠনের বাইরে কোনো মনগড়া বা হঠাৎ গজিয়ে ওঠা সংগঠনকে আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়া এবং করার কোনো সুযোগ নেই। দল ক্ষমতায় থাকলে নানা সুবিধাভোগী শ্রেণি এবং বসন্তের কোকিলরা এ ধরনের চেষ্টায় লিপ্ত হয়, যুক্ত হয় নানা আগাছা-পরগাছা।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, দলীয় সভানেত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী দলের মধ্যে কারও প্রকাশ্যে বা অপ্রকাশ্যে এ ধরনের কাজে সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। দলের নাম ভাঙিয়ে ব্যক্তিস্বার্থ হাসিলের অপচেষ্টাকারীদের বিরুদ্ধে নেয়া হবে প্রশাসনিক ব্যবস্থা।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top