ঢাবিতে ৯৭টি উঁচু ভবন নির্মাণের মহাপরিকল্পনা

সময় ট্রিবিউন | ৫ ডিসেম্বর ২০২১ ০০:৩১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় লোগো-ফাইল ছবি

নান্দনিক অবকাঠামো, অসংখ্য গাছপালা ও সবুজে ভরপুর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো পরিবর্তনে ১৫ বছর মেয়াদি মহাপরিকল্পনা নিয়েছে প্রশাসন। এতে বদলে যাবে শতাব্দী প্রাচীন এই ক্যাম্পাসের বর্তমান চিত্র।

১৫ বছর মেয়াদি মহাপরিকল্পনায় ৫৯৯টি পুরানো স্থাপনা ভেঙে ৯৭টি উঁচু ভবন নির্মাণের কথা বলা হয়েছে। এর মধ্যে ৬৯টি ১০ তলা ভবন বা তার চেয়েও উঁচু।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা দিয়েছে।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ডেটেক্স (ডেটা এক্সপার্ট প্রাইভেট লিমিটেড) এই মহাপরিকল্পনা তৈরি করেছে। এটি বাস্তবায়নের জন্য সরকারের কাছে ৯ হাজার কোটি টাকা চেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

মহাপরিকল্পনায় নতুন একাডেমিক ভবন ছাড়াও আছে একটি আধুনিক গ্রন্থাগার, আধুনিক সুবিধা সম্বলিত চিকিৎসা কেন্দ্র, জিমনেসিয়াম, মেয়েদের জন্য সুইমিং পুল এবং গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা।

এতে বাইসাইকেলের জন্য আলাদা লেন, ওয়াকওয়েসহ নতুন রাস্তা, খেলার মাঠের উন্নয়ন, উন্নত পয়নিষ্কাশন ব্যবস্থা, সবুজায়ন এবং জলাশয়ের সংখ্যা বাড়ানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে।

মহাপরিকল্পনাটি তিন ধাপে বাস্তবায়িত হবে। প্রথম ধাপে মোট ২৮টি ভবন হবে, যার মধ্যে সবচেয়ে উঁচু ২০ তলার একটি প্রশাসনিক ভবনও রয়েছে। কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের উত্তর-পশ্চিম অংশটি ভেঙে সেখানে ১২ তলা ভবনের প্রস্তাব করা হয়েছে।

খসড়া মহাপরিকল্পনা অনুযায়ী, ঢাবি ক্যাম্পাস ৩০৪ দশমিক ২১ একর জমির উপর অবস্থিত। মূল ক্যাম্পাস শাহবাগ, কাঁটাবন, পলাশী এবং কার্জন হল এলাকায় ২৭৬ দশমিক ২৮ একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।

এখানে মোট আয়তনের ২৬ শতাংশ এলাকায় ৯৮৫টি ভবন রয়েছে। মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে মোট আয়তনের ২১ শতাংশ জায়গা বিভিন্ন ভবনের দখলে থাকবে।

কর্তৃপক্ষ বলছে, মহাপরিকল্পনাটি ঢাবির ক্রমবর্ধমান শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের আবাসন ও অন্যান্য সমস্যাগুলো কমাবে।

ঢাবিতে বর্তমানে ৪১ শতাংশ শিক্ষার্থী, ২৯ শতাংশ শিক্ষক-কর্মকর্তা এবং ২২ শতাংশ কর্মচারীর আবাসন সুবিধা আছে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পর, ৭৬ শতাংশ শিক্ষার্থী, ৫৩ শতাংশ শিক্ষক ও কর্মকর্তা এবং ৩৫ শতাংশ কর্মচারী আবাসন সুবিধা পাবে বলে পরিকল্পনায় বলা হয়েছে।

মহাপরিকল্পনার কারিগরি কমিটির আহ্বায়ক ঢাবির প্রো-ভিসি অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, 'আমরা অনলাইনে শিক্ষার্থীদের মতামত নিয়েছি, সিন্ডিকেটে প্ল্যান পাস করেছি এবং অবশেষে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী কোনো নির্দেশনা দিলে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন করা হবে। তিনি বলেন, ক্যাম্পাসে উঁচু ভবন তৈরি করা 'সময়ের দাবি'।

'সবুজ, ঐতিহ্য, পরিবহন, দূষণ, জলাবদ্ধতার সমাধান ইত্যাদির কথা মাথায় রেখে মহাপরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে,' তিনি যোগ করেন।

উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, পরিবেশ, উন্মুক্ত স্থান ও ঐতিহ্যবাহী স্থানগুলোকে সুরক্ষিত রাখার জন্য তারা প্রকৌশলী ও নগর পরিকল্পনাবিদদের সঙ্গে পরামর্শ করে মহাপরিকল্পনা তৈরি করেছেন।

তিনি বলেন, 'পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পর উন্মুক্ত স্থান বৃদ্ধি পাবে। আমাদের প্রথম লক্ষ্য হল একাডেমিক ও গবেষণার চাহিদা পূরণ করা।'

উপাচার্য বলেন, 'একাডেমিক চাহিদা বিবেচনা করে মহাপরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে।'




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top