নিজস্ব প্রতিবেদক||দিয়েগো মারাদোনার সঙ্গে হর্হে সাম্পাওলির ‘মধুর’ সম্পর্কের কথা কারও অজানা নয়। বিশ্বকাপে নাইজিরিয়ার বিরুদ্ধে মরণ-বাঁচন ম্যাচের দিন তিনেক আগে ফের আর্জেন্টিনা কোচকে বাক্যবাণে বিদ্ধ করলেন তিনি। মেসির উদ্দেশ্যে বললেন, ‘‘ও শিশু। ওর পক্ষে দলের ভিতরের সমস্যা মেটানো অসম্ভব।’’

ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ম্যাচে বিধ্বস্ত হওয়ার পরে বিশ্বকাপে লিয়োনেল মেসিদের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। নাইজিরিয়া আইসল্যান্ডের বিরুদ্ধে জেতায় আর্জেন্টিনা শিবিরে স্বস্তি ফিরলেও মারাদোনা কিন্তু আশাবাদী নন। কেন? আর্জেন্টিনার কোচ যে সাম্পাওলি!

ক্ষুব্ধ মারাদোনা বলেছেন, ‘‘অনেকে মনে করছেন, সাম্পাওলি সব ঠিক করে দেবে। কিন্তু কম্পিউটার, ড্রোন ও চোদ্দো জন সহকারী থাকলেই সব সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়।’’ তাই তিনি নিজে আর্জেন্টিনার শিবিরে গিয়ে মেসিদের তাতাতে চান। বলেন, ‘‘আমাকে আর্জেন্টিনার ফুটবলারদের সঙ্গে কথা বলার অনুমতি দেওয়া হোক। যখনই দেশের জার্সি গায়ে চাপিয়েছি, নিজের জীবন দিয়েছি। ওদের বোঝাতে চাই দেশের জন্য খেলা মানে কী।’’

কেন এই বেহাল দশা আর্জেন্টিনার তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন কিংবদন্তি। বলেছেন, ‘‘আর্জেন্টিনার ফুটবলাররা জানেই না ওরা কী জন্য খেলছে। আক্রমণ থেকে রক্ষণ— সব বিভাগেই সমস্যা। ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে কোনও পরিকল্পনাই ছিল না ওদের।’’      একা সাম্পাওলি নন, মারাদোনার তোপের মুখে আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশনের কর্তারাও।

তবে মেসির পাশেই দাঁড়িয়েছেন তিনি। মারাদোনা বলেছেন, ‘‘মেসিকে সবাই কাঠগড়ায় তুলছে। আমার কিন্তু মনে হয়, ও নিজের খেলাই খেলেছে। ও তো শিশু, নেতা নয়।’’

নাইজিরিয়ার বিরুদ্ধে আর্জেন্টিনা গ্রুপ লিগে শেষ ম্যাচ খেলবে সেন্ট পিটার্সবার্গে। এই মুহূর্তে মেসিরা অবশ্য মস্কোর কাছে ব্রোনিৎসি ট্রেনিং ক্যাম্পে প্রস্তুতিতে ব্যস্ত। বিশ্বকাপে এখনও কোনও ম্যাচ জিততে না পারলেও শনিবার সকালে আর্জেন্টিনার অনুশীলন দেখতে ভিড় করেছিলেন অসংখ্য ফুটবলপ্রেমী। কিন্তু শিবিরের অন্দরমহলের আবহ একেবারেই স্বস্তিদায়ক নয়। ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচের পরে সের্খিয়ো আগুয়েরো প্রকাশ্যেই তোপ দেগেছেন সাম্পাওলির বিরুদ্ধে। তা সত্ত্বেও ফুটবলারদের চাপমুক্ত করতে মরিয়া আর্জেন্টিনা কোচ। শনিবার সকালে অনুশীলন শুরু করার আগে মিনিট পাঁচেক ফিটনেস কোচ হর্হে দেসিয়োকে দেখা যায় আগুয়েরোদের সঙ্গে মজা করতে।

এই পরিস্থিতিতে আর্জেন্টিনার অস্বস্তি আরও বাড়িয়েছেন নাইজিরিয়ার তারকা আহমেদ মুসা। সরাসরি তিনি চ্যালেঞ্জ ছুড়েছেন মেসিকে। তিনি বলেছেন, ‘‘মেসির বিরুদ্ধে খেলার সময় আমি অনেক বেশি উজ্জীবিত হয়ে খেলি। চার বছর আগে আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে দু’গোল করেছিলাম। আশা করি, এই ম্যাচেও তার পুনরাবৃত্তি হবে।’’

অন্য দিকে, ক্রোয়েশিয়ার ডিফেন্ডার দেজান লভরেন, যিনি মেসিকে আটকানোর কাজে ইতিমধ্যেই সফল, তিনি বলেছেন, ‘‘কে বলেছে মেসিকে আটকানো যায় না? আমরা ওকে নিয়ে কখনওই চাপে ছিলাম না। কারণ, জানতাম ওকে আটকানো কোনও ব্যাপারই না।’’